ভাইরাল সেই ভিডিও পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার উত্তরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজার তীর্থ গোপাল বনিকের নারী ও অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির জন্য চাকুরী থেকে বরখাস্ত।

ভাইরাল সেই ভিডিও পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার উত্তরা ব্রাঞ্চের ম্যানেজার তীর্থ গোপাল বনিকের নারী ও অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারির জন্য চাকুরী থেকে বরখাস্ত।
তীর্থ গোপাল বণিক, মানিকগঞ্জ এক নিম্নবিত্ত সনাতন ধর্মাবলম্বীর পরিবারে জন্ম গ্রহন করে। তার দুই ভাই ও তিন বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।কর্ম জীবনে পপুলার ডায়াগনস্টিক উত্তরা ব্রাঞ্চে দীর্ঘদিন কর্মরত ছিলো।

তার ছোট ভাই, পার্থ গোপাল বণিক , ছিলেন প্রিজন ডি,আই,জি এবং পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর প্রধান কার্যালয়ের ম্যানেজার অচিন্ত কুমার নাগ এর সহায়তায় ও প্রভাবে বিভিন্নভাবে অপকর্ম করে আসছিলো।গত বছর এইমাসে ছোট ভাই পার্থ গোপাল বণিক নগদ ৮০ লক্ষ টাকা সহ দুদকের কাছে ধরা খাইলে একটু বিড়ম্বিত হয়ে পড়ে, কিন্তু তারপরও তার অপকর্ম থেমে থাকেনি এবং বিভিন্ন সময়ে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর কর্মরত ডাক্তারদের কাছে মোটা অঙ্করে টাকা দাবি করত, যদি কেউ টাকা দিতে রাজি না হত তাহলে সে তাদেরকে চেম্বার থেকে বাহির করে দেওয়ার ভয় ভীতি দেখাত।


তীর্থ গোপাল বণিক পপুলার এ কর্মরত থাকা অবস্থায় উত্তরার মত জায়গায় ৫টি ফ্লাট,২টা গাড়ি ,পুরাবাচলে প্লট সহ জানা অজানা শতাধিক প্লট ও বাড়ী রয়েছে এবং রোগীদের কমিশনের টাকা ও প্রতিষ্ঠানের অর্থ আর্তসাত করে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যায়। অত্র প্রতিষ্ঠানের টাকা মেরে ছোট ভাই পার্থকে ছাড়ানোর চেস্টা করে। পাশাপাশি বিভিন্ন সময়ে লং-টুরে বাহিরে মেয়েদের নিয়ে ফুর্তি করে।তার এই সব কুকর্ম পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সামনে আসলে সে কোন সঠিক যুক্তি উপস্থাপনা করতে পারেনি বিধায়, গত ২৪ই নভেম্বর ২০২০ইং তারিখে তাকে ব্যবস্থাপনা পরিচালক চাকুরী পদ থেকে বরখাস্থ করা হয় ।

এছাড়া তীর্থ গোপাল বণিককে কড়া ভাষায় পপুলারে না ঢুকার জন্য আদেশ জারি করে।এতে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর উত্তরা ব্রাঞ্চের কর্মচারীরা আনন্দ উৎসব পালন করে।